Home 20 দেশের খবর 20 জনগণকে সোচ্চার হওয়ার আহবান আইনমন্ত্রীর

জনগণকে সোচ্চার হওয়ার আহবান আইনমন্ত্রীর

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয় জাতীয় সংসদে কেন আলোচনা করা যাবে না, এটা আমার বোধগম্য নয়। এ ব্যাপারে জনগণকে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানান তিনি।আজ বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহে চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নবনির্মিত ১০তলা ভবন উদ্বোধনকালে আইনমন্ত্রী একথা বলেন।আইনমন্ত্রী বলেন, জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত জাতীয় সংসদে যেকোনো বিষয় আলোচনা হতে পারে। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের পর এ নিয়ে সংসদে বিতর্ক ও আলোচনা হয়েছে। কিছু সুধীজন যারা ইলেকশনে দাঁড়ালে তাদের কী পরিণতি হবে জানি না, তারা বললেন সংসদে এটা আলোচনা করা যাবে না। তিনটি ধারার উল্লেখ করে তিনি বলেন, সংসদে তিনটি ধারায় কাউকে কটাক্ষ করা যাবে না বলা আছে। সংসদের আলোচনা আমি শুনেছি, কেউ সম্মানিত বিচারককে কটাক্ষ করে কোনো কথা বলেননি।ষোড়শ সংশোধনীর রায় প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী আরো বলেন, আমি এখনো পুর্নাঙ্গ রায় পাইনি। ১৯৭২ সালের সংবিধানে এই ৯৬ অনুচ্ছেদ ছিল। ১৯৭৭ সালে সামরিক সরকার এসে ৯৬ অনুচ্ছেদ বদলিয়ে সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিল পরিবর্তন করে। ৯৬ অনুচ্ছেদে ছিল, সংসদ ‘অসদাচরণ’ ও ‘অদক্ষতা’র কারনে দুই-তৃতীয়াংশ সদস্যের সম্মতিতে সুপ্রিম কোর্টের বিচারককে ‘রিমুভ’ করতে পারতেন।তিনি বলেন, বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশে এই ৯৬ অনুচ্ছেদ মতো ধারা তাদের সংবিধানে রয়েছে। আমরা সেজন্যই ষোড়শ সংশোধনীতে ১৯৭২ সালের সংবিধানের সেই ৯৬ অনুচ্ছেদ প্রতিস্থাপন করেছিলাম। আজকে দুঃখের সাথে বলতে হয়, আমাদের কাছে বোধগম্য হচ্ছে না, আমরা অরিজিনাল সংবিধানের ধারা প্রতিষ্ঠিত করলাম- আমাদেরটা ‘আলট্রাবায়োলেন্স’ হয়ে গেল। আর মার্শাল ল‘তে যেটা হলো, সেটা ভালো হয়ে গেলো। এটা আমার কাছে বোধগম্য নয়।আইনমন্ত্রী আরো বলেন, ২০০৭ সালের ১ নভেম্বর বিচার বিভাগ নির্বাহী বিভাগ থেকে পৃথক হয়ে স্বাধীনভাবে পথচলা শুরু করে। এরপর চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিচারিক এজলাসের সঙ্কটসহ নানা ভোগান্তির শিকার হন বিচারক, আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীরা। দিন দিন মামলাজট বাড়তে থাকে এবং মামলার সংখ্যা ৩০ লাখে দাঁড়ায়।তিনি বলেন, আমরা বিচার বিভাগের স্বাধীনতার কথা বলি। আমরা বিচার বিভাগের স্বাধীনতার সমুন্নত শুধু রাখতে চাই না। এটার শিকড় বাংলাদেশের অত্যন্ত গভীরে প্রোথিত হয়, সেই ব্যবস্থা করতে চাই। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হলে যেটা সবচেয়ে বড় প্রয়োজন সেটা হলো পর্যাপ্ত অবকাঠামো। প্রধানমন্ত্রী ২০০৯ সালে ক্ষমতায় এসে প্রথমেই সেই কাজগুলো শুরু করেন।আইনমন্ত্রী বলেন, বিচার বিভাগ স্বাধীন কিন্তু বিচারের বেতন-ভাতা অপর্যাপ্ত, তাহলে বিচার বিভাগ স্বাধীন থাকতে পারে না। একজন বিজ্ঞ জেলা জজের মাসিক বেতন ছিল ৪০ হাজার টাকা আজকের নতুন পে-স্কেলে সেই বেতন এখন দাঁড়িয়েছে ৭৮ হাজার টাকা।

সরকারি আইনজীবীদের মাসিক সম্মানি ১০ হাজার টাকা নির্ধারণসহ অন্যান্য সুবিধা বাড়ানো হবে জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, আমি নিজেও একজন আইনজীবী হিসেবে লজ্জিত বোধ করি এই মনে যে সরকারি আইনজীবীরা এখনো ২০০/৫০০ টাকা সম্মানি পেয়ে থাকেন।

আইনমন্ত্রী চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের যাতায়তের সুবিধার্থে স্থায়ী ফুটওভারব্রিজ নির্মাণ, আগামী ছয় মাসের মধ্যে লাইব্রেরি সমৃদ্ধকরণ এবং সৈয়দ নজরুল ইসলামের নামে আইনজীবী সমিতির নির্মাণাধীন ভবনের জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ প্রদানের আশ্বাস দিয়ে বলেন, দেশের প্রতিটি চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের ভবনে আইনজীবীদের বিশ্রামের জন্য ব্যবস্থা করা হবে।

জেলা ও দায়রা জজ ড. মোহাম্মদ আমির উদ্দিনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, অ্যাডভোকেট মোসলেম উদ্দিন এমপি, আইন বিচার ও সংসদীয় বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আবু সালেহ শেখ মোহাম্মদ জহিরুল হক, যুগ্মসচিব বিকাশ কুমার সাহা, চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট ফজলে খোদা মোহাম্মদ নাজির, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকা, জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট বাঁধন গোস্বামী, গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শহীদ মো. কবীর।

গণপূর্ত অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে এম কামরুজ্জামান জানান, আইন, বিচার ও সংসদীয় বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধিনে গণপূর্ত অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে দ্য ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যান্ড আর্কিটেক্টস লিমিটেড তিনটি লিফট ও অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধাসহ ১২তলা ভবনের ১০তলার নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ২০১১ সালে ২০ নভেম্বর শুরু হয়ে ২০১৭ সালে ৩০ জুন ৩৭ কোটি টাকা ব্যয়ে কাজটি সমাপ্ত হয়। এতে চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের এজলাসসহ ১৩টি এজলাস, লিগ্যাল এইড অফিস, সম্মেলন কক্ষ, রেকর্ডরুম, অজুখানাসহ নামাজ ঘর, প্যানট্রি, নেজারত, সেরেস্তা, পুরুষ-মহিলা হাজত, পিপি-এপিপি কক্ষ, ইন্সপেক্টর কক্ষ, মালখানা, লাইব্রেরি, ক্যাফেটরিয়া, রান্নাঘর, স্টেনো-স্টাফ কক্ষসহ নানাবিধ সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

About Dhakar News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বাঁশখালী কাণ্ডে শ্রমিক মৃত্যু, প্রতিবাদে শ্রমিক দলের মানববন্ধন

ঢাকার নিউজ ডেস্কঃবাঁশখালী গন্ডামারা কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে শ্রমিকদের উপর ‘নির্বিচারে গুলি’ করে ৭ (সাত) জন ...

বাঁশখালীতে শ্রমিকদের ওপর ‘গুলি বর্ষণকারী’ পুলিশের বিচার চায় শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন

ঢাকার নিউজ ডেস্কঃচট্টগ্রামের বাঁশখালীতে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে গত ১৭ এপ্রিলের পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষের ঘটনার পেছনে ...

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে চলছে কঠোর ‘লকডাউন’

এম উজ্জ্বল, নালিতাবাড়ীঃ দেশে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে কঠোর বিধিনিষেধ ‘সর্বাত্মক ...

সর্বাত্মক লকডাউনে বন্ধ পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ফেরি পারাপার

ঢাকার নিউজ ডেস্কঃ সর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে সাধারণ যানবাহন পারাপার বন্ধ করে ...

‘নদী বাঁচাও নালিতাবাড়ী বাঁচাও’ দাবীতে মানব বন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

এম উজ্জ্বল, নালিতাবাড়ী (শেরপুর) প্রতিনিধি :‘নালিতাবাড়ীর সূধী সমাজ’ এর উদ্যোগে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদের সামনে ...