Home 20 জাতীয় 20 প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায় ট্রেন দূর্ঘটনা

প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায় ট্রেন দূর্ঘটনা

গভীর রাত। হঠাৎ বিকট শব্দ পেলাম। চোখ খুলে দেখি আমাদের ট্রেনটি মাটি থেকে অনেক উপরে। দেখে মনে হচ্ছিল ট্রেনটি উড়ছে। এ অবস্থায় হঠাৎ মামাকে নিয়ে দরজা দিয়ে লাফিয়ে নিচে পড়ে যাই।
এভাবেই ট্রেন দুর্ঘটনার বর্ণনা দেন হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মদনমোরাদ এলাকার মো. শামীম হোসেন। তিনি দুর্ঘটনাকবলিত উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রী ছিলেন। শামীমের সঙ্গে ছিলেন তার ভাই ও মামা। এ দুর্ঘটনায় ভাইকে হারিয়েছেন শামীম।
শামীম বলেন, আমি ও আমার বড় ভাই আল-আমিন এবং মামা মনু মিয়া শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশন থেকে উদয়ন এক্সপ্রেসে উঠেছিলাম। আমরা তিনজনই চট্টগ্রামে রজমিস্ত্রির কাজ করি। আসন না পাওয়ায় আমরা দরজায় দাঁড়িয়েছিলাম। ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথাকে সাইড দেয়ার জন্য আমাদের উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনটি মন্দবাগ স্টেশনে ঢোকার আগে দাঁড়িয়ে যায়। ১০ মিনিট দাঁড়ানোর পরও তূর্ণা নিশীথা যাচ্ছিল না। এরপর ধীরে ধীরে সামনের দিকে এগোতে থাকে উদয়ন এক্সপ্রেস। হঠাৎ করে তূর্ণা নিশীথা এসেই উদয়ন এক্সপ্রেসকে সজোরে ধাক্কা দেয়। ধাক্কা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে উদয়নের তিনটি বগি দূরে গিয়ে ছিটকে পড়ে। এ অবস্থায় উদয়ন ট্রেনটি তূর্ণা নিশীথার ওপর উঠে যায়। এ অবস্থায় দেখে মনে হচ্ছিল আমাদের উদয়ন ট্রেনটি উড়ছে।
তিনি আরও বলেন, তূর্ণা নিশীথা ধাক্কা দেয়ার পর বিকট শব্দ হলে আমি মামাকে নিয়ে লাফিয়ে নিচে পড়ে যাই। এরপর ভাইকে খুঁজতে থাকি। কিন্তু খুঁজে পাইনি তাকে। সকালে ট্রেনের চাকার নিচ থেকে ভাইয়ের লাশ বের করা হয়। মাকে ভাইয়ের মৃত্যুর খবর জানাতে পারিনি আমি। ভাইয়ের মৃত্যুর খবর শুনলে মা মারা যাবেন।
তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের যাত্রী নিহার বড়ুয়া বলেন, চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় যাচ্ছিলাম। আমাদের ট্রেনটা ধীরগতিতেই যাচ্ছিল। আমরা মনে করেছিলাম ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। পরে দেখলাম উদয়নকে ধাক্কা দিয়ে দুমড়ে-মুচড়ে দিয়েছে। আমাদের ট্রেনের চালকের কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।
মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) রাত পৌনে ৩টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথা ও সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। আহত হয়েছেন শতাধিক যাত্রী।
সকাল সাড়ে ১০টার দিকে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম বলেছেন, তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের মাস্টার সিগন্যাল অমান্য করায় এ ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে।
এদিকে মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার জাকির হোসেন চৌধুরীও দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে তূর্ণা নিশীথার আউটার ও হোম সিগন্যাল অমান্য করার কথা জানিয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় নিজের কোনো দোষ নেই বলে দাবি করেন জাকির।

About News Desk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কোডিভ-১৯: একদিনে মৃত ৯৮, আক্রান্ত ৪ হাজার ১৪ জন

ঢাকার নিউজ ডেস্কঃদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও ৯৮ জনের প্রাণ গেলো। শেষ চব্বিশ ঘন্টায় নতুন রোগী ...

খালেদা জিয়া’র সুস্থতা কামনায় বোয়ালখালীতে বিএনপির দোয়া মাহফিল

ঢাকার নিউজ ডেস্কঃ বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া’র রোগ মুক্তি ও সুস্থতা ...

বাঁশখালী কাণ্ডে শ্রমিক মৃত্যু, প্রতিবাদে শ্রমিক দলের মানববন্ধন

ঢাকার নিউজ ডেস্কঃবাঁশখালী গন্ডামারা কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে শ্রমিকদের উপর ‘নির্বিচারে গুলি’ করে ৭ (সাত) জন ...

বাঁশখালীতে শ্রমিকদের ওপর ‘গুলি বর্ষণকারী’ পুলিশের বিচার চায় শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন

ঢাকার নিউজ ডেস্কঃচট্টগ্রামের বাঁশখালীতে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে গত ১৭ এপ্রিলের পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষের ঘটনার পেছনে ...

‘সিটিস্ক্যান রিপোর্ট ভালো, দুআ চেয়েছেন খালেদা জিয়া’

ঢাকার নিউজ ডেস্কঃবিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও করোনা আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মেডিক্যাল বোর্ডের ...